কেন পড়ব ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ম্যানেজমেন্ট

ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অর্গানাইজেশনের মতে, বর্তমান পৃথিবীতে যতগুলো বড় বড় ইন্ডাষ্ট্রি আছে, তার মধ্যে ট্যুরিজম হসপিটালিটি  ইন্ডাষ্ট্রি অন্যতম, যাকে আমরা পর্যটন শিল্প হিসাবে চিনি। বর্তমানে এই ট্যুরিজ্ম ইন্ডাষ্ট্রি ৭.৬ ট্রিলিয়ন ডলার বিশ্ব অর্থনীতিতে অবদান রাখছে। এই ইন্ডাস্ট্রির বর্তমান রিটেইল ভ্যালু প্রায় ৫০০ বিলিয়ন ডলার। বর্তমান পৃথিবীতে প্রায় ১ লক্ষ ৮৭ হাজার হোটেল আছে। প্রায় ৩১৯ মিলিয়ন মানুষ এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছে। সারা বিশ্বে কর্মসংস্থানের দিক থেকে পর্যটনশিল্পই সবচেয়ে এগিয়ে, প্রায় ১১ শতাংশ। পর্যটন হচ্ছে ‘বেসিক হিউম্যান ট্রেড’। এতে তেমন কোন উৎপাদন খরচ নেই। জিডিপিতে অবদান ৬ শতাংশ। পর্যটন বিশেষজ্ঞরা তাদের গবেষণার দ্বারা ধারণা করছেন, ২০২০ সাল নাগাদ বিশ্ব পর্যটকের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ১৬০ কোটি। এই বিপুল সংখ্যক পর্যটকের ৭৩ শতাংশই ভ্রমণ করবেন এশিয়ার দেশগুলোতে। পর্যটন শিক্ষা শতভাগ কর্মমুখী শিক্ষা। ভ্রমণপ্রিয় মানুষের চাহিদা মেটাতে পর্যটনশিল্পে চাহিদা বাড়ছে প্রশিক্ষিত ও দক্ষ জনবলের। এই সুন্দর পৃথিবীতে স্মার্ট ও আকর্ষণীয় ক্যারিয়ারের অন্যতম নাম হসপিটালিটি ও ট্যুরিজ্ম ম্যানেজমেন্ট। বাংলাদেশসহ বহির্বিশ্বের উন্নত দেশে (কানাডা, আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ফ্রান্স, নরওয়ে, পর্তুগাল, জাপান ও ইউনাইটেড আরব আমিরাতে) এই পেশার ব্যাপক চাহিদা আছে। পর্যটন বিষয়ে পড়তে চাইলে নুন্যতম এইচএসসি পাস এবং ইংরেজি বলায় দক্ষতা থাকতে হবে। সৌন্দর্যের চেয়ে এখানে ভালো কাজ জানাটাই গুরুত্বপূর্ণ। তবে তারকা হোটেলগুলোর কিছু বিভাগে শারীরিক গঠনকেও গুরুত্ব দেওয়া হয়।

পড়াশোনা শেষ করে সুন্দর ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন সবারই থাকে। আমাদের চারপাশে ক্যারিয়ার হিসেবে অনেক পেশা রয়েছে। একটি পেশা বেছে নিতে প্রয়োজন হয় সঠিক ক্যারিয়ার পরিকল্পনা। আর একটি সঠিক সিদ্ধান্ত গড়ে দিতে পারে একটি সফল ক্যারিয়ার। বাংলাদেশ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত দেশ। এদেশে অনেক জায়গা রয়েছে যেগুলোকে ঘিরে গড়ে উঠেছে পর্যটন সেক্টর। এই পর্যটন সেক্টরকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে অনেক নামি দামি পাঁচ তারকা হোটেল এবং রিসোর্ট। এগুলোকে ঘিরে বাড়ছে দক্ষ কর্মী ও ব্যবস্থাপকের চাহিদা। শুধু দেশে নয় দেশের বাহিরেও রয়েছে লোভনীয় চাকরির হাতছানি। এতক্ষণে নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন কোন পেশা নিয়ে কথা বলা হচ্ছে। আজকের আর্টিকেলে রয়েছে তুরুস্কে হোটেল ম্যানেজমেন্ট এ ক্যারিয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আদ্যোপান্ত। এ বিষয়ে পড়াশোনা করতে হলে এসএসসি পাশের পর ভর্তি হতে পারেন ডিপ্লোমা ইন হোটেল ম্যানেজমেন্ট ও ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ম্যানেজমেন্ট।

তুরস্ক এখন ইউরোপের অনেকগুলো দেশের চেয়ে অর্থনৈতিকভাবে ভালো দেশ। বিশেষ করে ইটালি, স্পেন, গ্রিস এই দেশগুলোর অর্থনৈতিক অবস্থা খুব খারাপ। তুরস্কের অবস্থান ইউরোপ এবং এশিয়ার মাঝখানে হওয়ায়, অনেকটা ইউরোপের হাওয়া দেশটিতে। তাছাড়া যারা মুসলিম সংস্কৃতি, মুসলিম জীবন-যাপনের মধ্যে থাকতে চান, তাদের জন্য তুরস্ক হলো অন্যতম একটি দেশ, যেখানে আপনি স্থায়ীভাবে বসবাস করে শান্তি পাবেন। উচ্চশিক্ষার লক্ষ্যে প্রতিবছর ইউরোপ-এশিয়ার বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী পাড়ি জমাচ্ছে ইউরেশিয়ার অন্যতম মুসলিম দেশ তুরস্কে। তুলনামূলক কম টিউশন ফি হলেও আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষাদান করছে দেশটির বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। চাহিদা সম্পন্ন সব বিষয়েই পড়ার সুযোগ আছে তুরস্কে।

তুরস্ক ইতিমধ্যে মানসম্পন্ন শিক্ষাগত যোগ্যতা অর্জনকারী আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য একটি আদর্শ গন্তব্য হিসাবে দ্রুত সুনাম অর্জন করছে। তুরস্কে পড়াশুনা করতে আসা আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীর সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। বর্তমানে তুরস্কে প্রায় ৬৫০,০০০ বিদেশী শিক্ষার্থী পড়াশুনা করছেন। অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কোঅপারেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট এর তথ্যমতে ২০২৫ ইং সাল নাগাদ তুরুস্কে প্রায় বিদেশী শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ৮ মিলিয়ন (৮০ লক্ষ) হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তুরস্কে অধ্যয়নের খরচ ইউরোপিয়ান দেশগুলির মধ্যে  অপেক্ষাকৃত সস্তা। অর্থাৎ অল্প টাকা খরচ করেই আপনি পেয়ে যাচ্ছেন আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো বর্তমান বিশ্বে জনপ্রিয় ১০ টি হলিডে ডেস্টিনেশনের মধ্যে তুরুস্ক একটি। ২০১৯ ইং সালে দেশটিতে বিদেশী  ট্যুরিস্ট এর সংখ্যা ছিল প্রায় ৪৫ মিলিয়ন। (৪ কোটি ৫০ লক্ষ)।

কেন আপনি তুরুস্কে পড়াশুনা করবেন ?

✅ কোন আই.ই.এল.টিএস এর প্রয়োজন নেই।
✅ এস.এস.সি পাস করেই আবেদন করতে পারছেন।
✅ একাডেমিক ফলাফল সর্বনিম্ন ২.৫ হলেই আবেদন করতে পারছেন।
✅ ৩০ দিনের মধ্যেই রেসিডেন্স পার্মিট অনুমোদন।
✅ ১৮ বছর বয়স হলেই স্টাডি ভিসার জন্য আবেদন করা যায়।
✅ অন্যানো দেশের মতোই পার্ট-টাইম কাজের অনুমোদন।
✅ ৬ মাস পরেই সুইজারল্যান্ডে তাঁদের চুক্তিবদ্ধ প্রতিষ্ঠানে ক্রেডিট ট্রান্সফারের সুবিধা।
✅ পড়াশুনা শেষেই ৫ ষ্টার হোটেলই ইন্টার্নী ও চাকরি সুযোগ।
✅ বাংলাদেশেই তুরুস্কের এ্যাম্বেসী আছে।
✅ দীর্ঘ স্টাডি গ্যাপ গ্রহণযোগ্য।
✅ আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন শিক্ষা ব্যবস্থা।
✅ আধুনিক মুসলিম সংস্কৃতি এবং উদীয়মান মুসলিম ক্ষমতাধর রাষ্ট্র।
✅ সুসজ্জিত ক্যাম্পাস ও নিরাপদ শিক্ষার বিশেষ সুযোগ।
✅ ইউরোপিয়ান সর্বোচ্চ অতিথিপরায়ণ ও বন্ধুসুলভ রাষ্ট্র।
✅ বিশ্বেসেরা নৈসর্গিক সৌন্দর্যমন্ডিত দেশ ভৌগলিক অবস্থানের জন্য।
✅ ২০২৫ সালের মধ্যেই তুরস্ক সেনজেন ভুক্ত দেশ হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
✅ ৫বছর কেউ বৈধভাবে বসবাস করলেই ও তুর্কিশ ভাষা জানলেই ন্যাচারালাইজ সিটিজেনশিপের জন্য আবেদন করা যায়।

যেসব বিষয়ে পড়তে পারেন:

হোটেল ম্যানেজমেন্ট শুধু একটি বিষয় নয়। এর মধ্যে বেশ কিছু বিষয় রয়েছে। যেমন হোটেল ম্যানেজমেন্ট, ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ম্যানেজমেন্ট ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি। এসব বিষয়ে এক বছরের ডিপ্লোমা কোর্স রয়েছে। চাহিদামতো যে কোনো একটি কোর্স করতে পারেন।

ডিপ্লোমা ইন হোটেল ম্যানেজমেন্ট: প্রিন্সিপলস ও প্রাকটিস ম্যানেজমেন্ট, অপারেশন ম্যানেজমেন্ট, অর্গানাইজেশনাল ম্যানেজমেন্ট, ফুড ম্যানেজমেন্ট, ট্রাভেল ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি বিষয় এই কোর্সের অন্তর্ভুক্ত। এই কোর্সের মেয়াদ ১ (এক) বছর।

ডিপ্লোমা ইন ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট:কোনো ফেস্টিভ্যাল, কনফারেন্স, ওয়েডিং অথবা ফর্মাল পার্টি, কনসার্ট অথবা কনভেনশন ইত্যাদি বিষয় এই কোর্সের অন্তর্ভুক্ত। এই কোর্সের মেয়াদ ১ (এক) বছর।

ডিপ্লোমা ইন ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ম্যানেজমেন্ট: খাবার তৈরি, টেবিল সাজানো, খাদ্য ও পানীয় পরিবেশন, পানীয় ও খাদ্যতালিকা হাইজিন অ্যান্ড স্যানিটেশন ইত্যাদি বিষয় এই কোর্সের অন্তর্ভুক্ত। এই কোর্সের মেয়াদ ১ (এক) বছর।

ভর্তির যোগ্যতা:

এ বিষয়ে পড়াশোনা করতে চাইলে আপনার নূন্যতম যোগ্যতা এস.এস.সি/ও লেভেল /দাখিল/ ভোকেশনাল সমমান পাস হতে হবে।
✅বয়স নূন্যতম ১৮ বছর হতে হবে।

পড়াশোনার খরচ:

পড়াশোনার খরচ ইউনিভার্সিটির বা কলেজের পড়াশুনা ও ইউনিভার্সিটি অথবা কলেজের মানের উপর  নির্ভর করছে। তবে যে সমস্ত শিক্ষর্থীরা তুরুস্কে  পড়াশুনা করতে যেতে চায়, তাদেরকে শুধুমাত্র ৬ মাসের টিউশন ফী ওই ইউনিভার্সিটি বা কলেজ কে প্রদান করতে হবে।

৬ মাসের টিউশন ফী নূন্যতম ২৪০,০০০/=থেকে সর্বোচ্চ ৪০০,০০০/=টাকা গুনতে হবে।

ছাড়াও থাকা, খাওয়া, এ্যাম্বেসী ফী ও বিমান ভাড়া আছে। সর্বসাকুল্যে প্রায় ৩৭৫,০০০/=(তিন লক্ষ পঁচাত্তর হাজার টাকা) এর চেয়ে আর কম খরচে ইউরোপের কোন দেশের পড়াশোনা করা যায় না।

কাজের বিভাগ ও দায়িত্ব:

এখনকার পাঁচতারকা হোটেল মানেই যেন একটা ছোটখাটো শহর। গোটা ছয় রেস্তোরাঁ ২৪ ঘণ্টা খোলা, কফিশপ, কনফেকশনারি, সুইমিংপুল, ডিস্কো, কনফারেন্স রুম, বুটিক, টেনিস কোট কিছুই বাদ নেই। তাই এসব হোটেল চালাতে গেলে প্রয়োজন পেশাদার কর্মীর। কারণ একটি আধুনিক পাঁচতারকা হোটেলে বেশ কিছু বিভাগ থাকে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, হাউসকিপিং, পাবলিক রিলেশন, মার্কেটিং, ফিন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট, হোটেলের ফ্রন্ট অফিস ম্যানেজমেন্টসহ সব জায়গায় হোটেল ম্যানেজমেন্ট পাস করা ছাত্রছাত্রীদের কদর। কিছু কিছু বিভাগে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের চাহিদাই বেশি। এর মধ্যে হাউসকিপিং, ফ্রন্ট অফিস অপারেশন ও ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম অন্যতম।

বিদেশে পড়াশোনা ও ক্যারিয়ার সম্ভাবনা:

কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা ইংল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, তুরস্ক, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, পোল্যান্ড, দুবাই ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমে পড়াশোনাসহ গ্র্যাজুয়েশন করার সুযোগ রয়েছে। পর্যটনশিল্পের ওপর নির্ভর করে এসব দেশে গড়ে উঠেছে প্রচুর হোটেল রেস্টুরেন্ট, বিভিন্ন এয়ারলাইনস কোম্পানি, রিসোর্ট, ট্যুর কোম্পানি ও ট্রাভেল এজেন্সি। এসব দেশে এখনো দক্ষ  পেশাজীবীর প্রচুর চাহিদা। বিদেশে পড়াশোনা এবং প্রশিক্ষণের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো শিক্ষার পাশাপাশি ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমে কাজ করার অফুরন্ত সুযোগ। তাই এসব দেশে বাংলাদেশ থেকে প্রচুর শিক্ষার্থী  যাচ্ছে। আপনিও চাইলে প্রয়োজনীও কিছু শর্ত পূরণ করে যেতে পারেন এসব দেশে। আমাদের স্বপ্নের এ বাংলাদেশে ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ম্যানেজমেন্টে ক্যারিয়ার দিন দিন বাড়ছে। আমাদের এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে আপনিও  রাখতে পারেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান।

ভবিষৎ আয়-রোজগার ও সুযোগসুবিধা সূমহ:

ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিষয়টি নতুন হলেও সমাজে ও কর্মক্ষেত্রে এর ব্যাপক চাহিদা থাকায় এর প্রতি শিক্ষার্থীদের  আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। এখানে যেমন রয়েছে পর্যাপ্ত বেতন ও সুযোগ-সুবিধা। প্রতিষ্ঠান ও কাজভেদে বেতন কাঠামো ভিন্ন হয়। ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্নকারীরা কাজ শুরু করতে হবে শিক্ষানবিশ হিসেবে। এ সময় তারকা হোটেলগুলো থেকে যাতায়াত ভাড়া, থাকা ও খাওয়া বাবদ কিছু টাকা দেওয়া হয়। তবে সব হোটেলে একই রকম নিয়ম নেই। আমাদের দেশে শিক্ষানবিশ শেষে শুরুতে বেতন ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা হয়ে থাকে। অভিজ্ঞদের বেতন ৩৫ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত হয়। এ ছাড়া কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে লভ্যাংশের একটা অংশও কর্মচারীদের নিয়মিত অংশ হিসাবে প্রদান করা হয়। তবে দেশের বাইরে উন্নত বিশ্বে যেমন কানাডা, আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, ফ্রান্স, নরওয়ে, পর্তুগাল, জাপান ও ইউনাইটেড আরব আমিরাতে সর্বনিম্ন ২৫০০ ডলার থেকে ৮০,০০০ ডলার পর্যন্ত মাসিক বেতন দিয়ে থাকেন।

আবেদনের শেষ তারিখ: মার্চ ৩১, ২০২০। 

সুতরাং আজই যোগাযোগ করুন ফ্রিতে ভর্তি ও ভিসা সার্ভিসের জন্য। আমাদের ভিসার আগে ও পরে কোন সার্ভিস চার্জ নেই। আসন সংখ্যা খুবই সীমিত। দ্রুত আবেদন করে আপনার ভিসা নিশ্চিত করুন।

বিস্তারিত তথ্যের আপনি স্বপরিবারে আমন্ত্রিত। আপনি আপনার ছেলে বা মেয়েকে নিয়ে সরাসরি আমাদের অফিসে চলে আসুন। পরামর্শ নিয়ে বাস্তবায়ন করুন আপনার ইউরোপের দেশ তুরুস্কে যাওয়ার স্বর্ণালী স্বপ্ন।

Apply for Free Admission & Visa Service 

Only Appointment / Registration: 01919-003872 সুতরাং দেরি না করে দ্রুত এপয়েন্টমেন্ট নিয়ে ফেলুন ও প্রতিষ্ঠানের মালিকের সাথে সরাসরি সাক্ষাতে কথা বলুন ও সকল প্রয়োজনীয় তথ্য জেনে নিন। Note: No one will be entertained without prior appointment.

Our Corporate Office: Azhar Comfort Complex (Level-06) 130/A Progati Saroni, Middle Badda (Beside PRAN Center), Dhaka-1212, Bangladesh. Location Assistance: 01919-003872

N.B: Appointment / Registration / Consultation is completely free of charge.

error: Content is protected !!